Skip to content

ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা ও ছাগলের ইনজেকশন। ছাগলের রোগ ছাগলের ঔষধ

নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা ও ছাগলের ইনজেকশন ছাগলের ঔষধ ছাগলের অসুখ ও চিকিৎসা এবং ওষুধ 1 ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা ও ছাগলের ইনজেকশন। ছাগলের রোগ ছাগলের ঔষধ ছাগল ও ভেড়া ছাগলের নিউমোনিয়ার চিকিৎসা। আমরা একজন খামারি ভাইয়ের ভাইয়ের মুখ থেকে ছাগলের সমস্যার কথা শুনেছি। আমরা রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসা এবং মেডিসিন পরামর্শ দিব। ছাগলের রোগ ও চিকিৎসা ছাগলের ঔষধ ছাগলের রোগের চিকিৎসা ছাগলের ইনজেকশন ছাগলের নিউমোনিয়া চিকিৎসা ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা ছাগলের বাচ্চার নিউমোনিয়া ছাগলের নিউমোনিয়া

ছাগলের অসুখ ও চিকিৎসা পর্বে আজকে আমরা ছাগলের একটি রোগ নিতে আলোচনা করবো। আমরা একজন খামারি ভাইয়ের ভাইয়ের মুখ থেকে ছাগলের সমস্যার কথা শুনেছি। আমরা রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসা এবং মেডিসিন পরামর্শ দিব। যে সকল নিয়মিত আমাদের আলোচনাগুলো পড়েন কেমন লাগে আমাদের বিভিন্ন রকম রোগ তাদের চিকিৎসা এবং মেডিসিন পরামর্শগুলি অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

 ছাগলের রোগ ও চিকিৎসা  ছাগলের ঔষধ  ছাগলের রোগের চিকিৎসা  ছাগলের ইনজেকশন  ছাগলের নিউমোনিয়া চিকিৎসা  ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা  ছাগলের বাচ্চার নিউমোনিয়া  ছাগলের নিউমোনিয়া ছাগলের রোগ ও চিকিৎসা  ছাগলের ঔষধ  ছাগলের রোগের চিকিৎসা  ছাগলের ইনজেকশন  ছাগলের নিউমোনিয়া চিকিৎসা  ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা  ছাগলের বাচ্চার নিউমোনিয়া  ছাগলের নিউমোনিয়া

তো চলুন দেখে নেওয়া যাক সেই ছাগলটির রোগের কি কি লক্ষণ ছিল? পায়খানা করছে ও পায়খানা জলের মতো হয়ে যাচ্ছে আস্তে আস্তে। ছাগলটার এরকম জলের মত পুরো পায়খানা করছে, পুরো ঝিম মেরে রয়েছে, ঝিম মেরে থাকতে থাকতে শুয়ে পড়েছে, খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে, হাটটে গেলে খোরাচ্ছে পা ভেঙে যাচ্ছে। নাক দিয়ে পানি পড়ছে।

 

প্রিয় দর্শক সম্পূর্ণ তথ্যে আমরা ছাগলের লক্ষণগুলি দেখে নিলাম সঙ্গে আমার খামারি ভাইয়ের মুখ থেকে ছাগলের সমস্যাগুলির কথা শুনে নিলাম। অনেকে মনে করেন ঘরোয়া ভাবে ছাগল পালন করলে কোন সমস্যা হয় না। ভুলে যাবেন না এই ছাগলগুলো কিন্তু ঘরোয়া পদ্ধতিতে পালন হয়েছে থাকে তবুও কিন্তু ছাগলগুলো কঠিন রোগের শিকার হয়ে গেছে।

 

এই ছাগল গুলোর মধ্যে রোগের লক্ষণ দেখা যাওয়ার পর থেকেই তিনি চিকিৎসা শুরু করেন তাতে কিন্তু কোনোরকম পরিবর্তন হয়নি। চিকিৎসা শুরু করার পরও ছাগল এখান থেকে মারাও গেছে।

 

মনে রাখবেন অধিকাংশ ছাগল কিন্তু এই ধরনের সিমটম নিয়েই মারা যায়। বেশিরভাগ খামার বা গ্রামাঞ্চলে এ রোগ যদি চলে আসে সঠিক চিকিৎসার অভাবে ছাগলগুলো মারা যায় এবং এই রোগের লক্ষণগুলি দেখে মনে হয় অনেকটা পিপিআর। কিন্তু থেকে ছাগলগুলির বিস্তারিত লক্ষণ জানার পর বোঝা গেল ছাগলগুলি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে।

 

ছাগলগুলি যে নিউমোনিয়া আক্রান্ত হয়েছে এটা আমরা কিভাবে কনফার্ম করতে পারলাম? বুঝবেন এখন গরমকাল গরমকালের ছাগলগুলোকে মাঠে চরাতে নিয়ে যেত কিন্তু এই গরমে হঠাৎ করে বৃষ্টি আসার ফলে ছাগলগুলি ভিজে যায় যেটা উনি নিজেই বলেছেন। এরপর থেকে কিন্তু ছাগলগুলো হালকা ঠান্ডা লাগে যে তাকে আমরা রাইনাইটিস বলি।

 

ঠান্ডা লাগা অবস্থায় ছাগলগুলি কোনরকম ট্রিটমেন্ট পড়েনি যার জন্য আস্তে আস্তে সেটা থেকে পরিবর্তিত হয়ে নিমুনিয়াতে রূপান্তরিত হয়েছে। এর আগেও অনেক আলোচনায় আমরা রাইনাইটিস, ব্রংকাইটিস, নিউমোনিয়া নিয়ে আলোকপাত করেছি।

 

মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, যে ছাগলটির যদি নিমোনিয়া হয়ে থাকে তবে পাতলা পায়খানা  কেন হল? বুঝবেন যখন এটি একটি ছাগল রাইনাইটিস এ আক্রান্ত হয় তার খাওয়া দাওয়া রুচি কমে যায় অর্থাৎ তার লিভারে আক্রান্ত হয়।

 

আর যখনই রাইনাইটিস থেকে নিমুনিয়াতে রূপান্তরিত হয় সে সময় একদমই খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দেয়। আগে যেসব খাবার দাবার খেয়েছিল লিভার এফেক্টের থাকার জন্য সেই খাবার হজম হয় না। হজম না হওয়ার ফলে সেগুলো থেকে ভিতরে গ্যাস হয়ে যায়, আর যার ফলে কিন্তু পাতলা পায়খানা শুরু হয়। আর যখনই পশুর পাতলা পায়খানা শুরু হয় রক্তের মধ্যে যে জল থাকে সেই জল রুমেনের মধ্যে চলে আসে আর সেই জল পাতলা পায়খানার মাধ্যমে বাইরে বেরিয়ে যায়। যার ফলে রক্ত গাঢ় হয়ে যায়, রক্তের প্রধান কাজ থেকে অক্সিজেন কে রক্ত কোষের মধ্যে পৌঁছানো এবং রক্ত থেকে কার্বন-ডাই-অক্সাইড গ্যাসের ফুসফুসের মধ্যে পৌঁছানো এবং রক্তের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের খাদ্য উপাদান অর্থাৎ নিউট্রেশন সেই নিউট্রেশন গুলোকে কিন্তু রক্তকণিকাগুলোর মধ্যে সঠিকভাবে পৌছাতে পারেনা আর যার ফলে রক্তের মধ্যে কার্বন ডাই অক্সাইডের মাত্রা বেড়ে যায় এবং অক্সিজেনের মাত্রা কমে যায় যার ফলে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যাঘাত ঘটে।

 

আর এই নিউমোনিয়া এমন একটি রোগ যা একটি ফার্মের মহামারীর আকার নিয়ে থাকে। দেখবেন নিউমোনিয়ার লক্ষণ মুখে ঘা হয়ে যাবে, নাক থেকে অনর্গল সর্দি, চোখের জল পড়বে, পেট ফুলে যাবে, পাতলা পায়খানা হবে, শরীরের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাবে এবং শ্বাস-প্রশ্বাসে ব্যাঘাত ঘটবে। আর সঠিক চিকিৎসার অভাবে আস্তে আস্তে শিশুটি মারা যাবে। নিউমোনিয়ার চিকিৎসা যখন ফুল নিমোনিয়াই আক্রান্ত সে সময় খাওয়ানো মেডিসিন এর তুলনায় ইনজেকশনের ট্রিটমেন্ট অনেক বেটার কাজ করে।

 

এই ছাগলগুলোর নিমোনিয়ার লক্ষণ প্রকাশের শুরুতেই যে ট্রিটমেন্টগুলো দিলেই ছাগল সুস্থ হয়ে যেতঃ

  • নাম্বার এক, ”এভিল” অথবা ”ইন্সটামাইন” পার কুড়ি কেজি ওয়েটে দুই মিলি করে।
  • নাম্বার দুই ”ম্যালোকসিক্যাম” এন্ড ”প্যারাসিটামল” পার কুড়ি কেজি ওয়েটে দুই মিলি করে।
  • নাম্বার তিন, ”এনরোফ্লাকসাসিন” পার কুড়ি কেজি ওয়েটে দুই থেকে আাড়াই মিলি করে।
  • নাম্বার চার, একটা কন্সিপ্লেক্স ইঞ্জেকশন যেটা ভিটামিন বি কমপ্লেক্স পার কুড়ি কেজি ওয়েটে আড়াই থেকে তিন মিলি করে।

এই চিকিৎসা লাগাতার তিন থেকে পাঁচ দিন করলে ছাগলগুলি সুস্থ হয়ে যেত।

 

মনে রাখবেন বন্ধুরা একটা রোগের বহু পদ্ধতিতে চিকিৎসা করা যায় কিন্তু সেটাও বুঝতে হবে যে মেডিসিন প্রয়োগ করা হলো তার 12 ঘণ্টার মধ্যে যদি ওর কোন ভাল রেসপন্স পাওয়া না যায় তাহলে কিন্তু সেই ট্রিটমেন্টটা চেঞ্জ করা উচিত।

 

বর্তমানে ছাগলের অবস্থা খুব খারাপ হয়ে গেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে ছাগলের চিকিৎসা যেমন হবেঃছাগলের ওষুধ ছাগলের নিউমোনিয়ার চিকিৎসা ছাগলের ঔষধ ছাগলের রোগের চিকিৎসা ছাগলের ইনজেকশন

  • নাম্বার এক, ”আইসোফ্লয়েড” 2 মিলি
  • নাম্বার দুই, ”নিমসুলাইডস” 2 মিলি এন্ড ”প্যারাসিটামল” 2ml
  • নাম্বার তিন, এন্টিবায়োটিক ”অ্যাম্বিস্টিন-এস” 10 এমজি পার কুড়ি কেজি বডি ওয়েটে। এটির জেনেরিক নাম স্টেপটোমাইসিন সাথে এন্টিবায়োটিক “অ্যামোকিরাম” 10 এমজি পার কুড়ি কেজি বডি ওয়েটে।
  • নাম্বার চার, ”রুমেরিক” 3 মিলি করে পার কুড়ি কেজি বডি ওয়েটে, মাইনো এসিড এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্স এর উপাদান গুলি রয়েছে।

 

মনে রাখবেন নাম্বার তিন এ উল্লিখিত এই দুটো এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করতে হবে কিন্তু প্রয়োগের নিয়ম একটা এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করার ঠিক 8 থেকে 10 ঘণ্টা পর দ্বিতীয় এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করতে পারবেন।

 

এছাড়া অতিরিক্ত শ্বাসকষ্ট হলে তাকে ইনহেলঅর দিতে হবে অর্থাৎ জল গরম করে সেই গরম জলের মধ্যে যে ভাবটা টানাতে হবে। যদি শরীর থেকে অতিরিক্ত মাত্রায় জল বেরিয়ে যায় প্রয়োজন অনুসারে তাকে Intalyte স্যালাইন 300 থেকে 500 এমএল লাগাতে হবে একটা কুড়ি থেকে ত্রিশ কেজি ওয়েট এর ছাগলকে।

 

প্রিয় বন্ধুরা সবসময় মনে রাখবেন যে কোন রোগের চিকিৎসা কে একদম সহজ মনে করে নেবেন না কোন বইয়ে দেখে, ইউটিউবে দেখে এবং ট্রিটমেন্ট করলেন এটা কখনোই করবেন না। যেকোনো রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয় সেই সময়কার ওই রোগের সিমটম কি রয়েছে তারউপর নির্ভর করে কিন্তু ট্রিটমেন্ট মেডিসিন নির্ণয় করে চিকিৎসা গুলি দেওয়া হয়ে থাকে।

 

বন্ধুরা কেমন লাগলো আজকের এই পর্বের আলোচনা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাবেন সঙ্গে আামাদের ফেসবুত পেইজে একটা লাইক করতে ভুলবেন না। সম্পূর্ণলেখাটি পড়ার পর এতে দেওয়া তথ্য যদি ভালো লাগে বাকি বন্ধুদের শেয়ার করে দেখার সুযোগ করে দেবেন। পশুদের বিভিন্ন রকম রোগের চিকিৎসা এবং মেডিসিন সম্পর্কে আরো জানতে হলে আমাদের সাথেই থাকুন। মূল আলোচনাটি সংগ্রহিত।

2 thoughts on “ছাগলের নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা ও ছাগলের ইনজেকশন। ছাগলের রোগ ছাগলের ঔষধ”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *